মানসিক স্বাস্থ্য

জয়া স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার এবং জয়া স্যানিটারি ন্যাপকিনের দাম

জয়া নেফকিন

5/5 - (2 votes)

সময়ের সাথে সাথে দিন দিন সকল মানুষ স্বাস্থ্য সচেতন হচ্ছে। বিশেষ করে জয়া স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার সম্পর্কে কিশোরী ও প্রাপ্ত বয়ষ্ক মহিলারা বেশি সচেতন। তবে আমাদের দেশের বেশির ভাগ মানুষই পিরিয়ডের সময় স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করতে পারে না। এর প্রদান কারন হচ্ছে ন্যাপকিন ব্যবহারের উপকারিতা না জানা।

এছাড়া লজ্জার কারনে অনেকে দোকান থেকে প্যাড কিনতে পারেনা। আমাদের সমাজে আগের জেনারেশনের মহিলারা কাপর ব্যবহার করে। এবং কাপর ব্যবহারের পরামর্শ দেয়। আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরনের প্যাড কিনতে পাওয়া যায়। আমি স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো।

স্যানিটারি ন্যাপকিন কি

প্যাড বা স্যানিটারি ন্যাপকিন হচ্ছে মেয়েদের মাসিক এর সময় ব্যবহৃত শেষক জাতীয় ব্স্ত্র। এছাড়াও গর্বপাতের সময় মেয়েদের রক্তপাত থামানো বা শোষনের জন্য ব্যবহৃত হয়। এগুলো প্যাড নামে পরিচিত।

Also read : The 9 Best Healthy Morning Breakfast that we should know

স্যানিটারি ন্যাপকিন এর দাম

আমাদের দেশে বিভিন্ন দরনের স্যানিটারি ন্যাপকিন রয়েছে এগুলোর একেক ব্যান্ডের একেক দাম। যেমনঃ

  • স্যানোরা ন্যাপকিন এর ৮ পিস ওয়ালা প্যাডের দাম ১২০ টাকা।
  • জয়া স্যানেটারি ন্যাপকিনের ১৬ পিস ওয়ালা প্যাডের দাম ২০০ টাকা।
  • মোনালিসা স্যানোরা ন্যাপকিন ১০ পিস ওয়ালা প্যাডের দাম ১১০ টাকা।
  • ভেনাস ৫ পিস ওয়ালা প্যাডের দাম ৫৫ টাকা।

সবচেয়ে ভালো স্যানেটারি ন্যাপকিন কোনটি

বর্তমানে বাংলাদেশের বাজারে অনেক দেশি বিদেশি ব্যান্ডের পাশা পাশি ছোট ছোট উদ্দক্তাদের তৈরি প্যাড ও পাওয়া যায়। ভাল মানের স্যানিটারি ন্যাপকিনের জন্য বেশ কয়োকটি কোম্পানি চালু হয়েছে যেমন, স্কয়ার, বসুন্ধরা, এ সি আই, এদের মধ্যে এগিয়ে আছে। এদের পাশাপাশি ছোট ছোট কয়েকটি কোম্পানিও এগিয়ে আছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে ভাল মানের প্যাডের মধ্যে উল্যেখযোগ্য হলোঃ জয়া, স্যানোরা, ফ্রিডম, মোনালিসা,ভেনাস, সফটি উল্লেখযোগ্য।

আরো পড়ুনঃ  tyclav 625 এর কাজ কি | টাইক্লাভ খাওয়ার নিয়ম | tyclav এর দাম কত

স্যানেটারি ন্যাপকিন ব্যাবহারের সঠিক পদ্ধতি

মাসিকের সময় সঠিক ভাবে প্যাড ব্যাবহার না করলে অনেক সমস্যার সম্মখীন হতে হয়। তাই স্যানেটারি প্যাড ব্যাবহারের সঠিক পদ্ধতি জানতে হবে এবং অপরকে জানাতে হবে। বাজারে বিভিন্ন রকমের স্যানেটারি প্যাড রয়েছে, আপনার সুবিধা মতো সাইজ কিনতে পারেন।

একটি প্যাড ৪ ঘন্টার বেশি সময় ব্যবহার করা যাবেনা। এর বেশি সময় ব্যবহার করলে আগের রক্ত সুকিয়ে গিয়ে জীবাণুর জন্ম হবে। প্যাড ব্যবহারে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয় সময়ের উপর। একটি প্যাড চার থেকে ছয় গন্টার বেশি ব্যবহার করা যাবেনা। অতিরিক্ত রক্তপাত হলে এক ঘন্টা পরপর প্যাড পরিবর্তন করতে হবে। প্যাড ব্যবহারের পর প্যাড টয়লেট পেপার দিয়ে মুড়িয়ে ডাস্টবিনে ফেলতে হবে।

আরো পড়ুন : ঘি এর উপকারিতা ( Benefits Of Ghee ) ঘি খাওয়ার নিয়ম এবং খাঁটি ঘি এর দাম

কয়েকটি স্যানেটারি ন্যাপকিন বা প্যাড

বাংলাদেশে বিভিন্ন দরনের স্যানেটারী প্যাড পাওয়া যায়, তার মধ্যে স্যানোরা হচ্ছে এমন এক স্যানেটারি প্যাড যা মেয়েরা মাসিক বা ঋতুস্রাবের সময় রক্ত চুষনের জন্য ব্যবহার করে।

স্যানোরা

এক দরনের চুষন ক্ষমতা সম্পন্ন প্যাড হচ্ছে স্যানোরা। আগের কার যুগে মেয়েরা মাসিক বা ঋতুস্রাবের সময় কােরের ন্যাপকিন ব্যবহার করতো। কিন্তু বর্তমানে মানসম্মত অনেক প্যাড রয়েছে যা আমারের স্বাস্থ যুকি কমাতে সাহায্য করে। তার মধ্যে সেনোরা অন্যতম।

আরো পড়ুনঃ  করোনার সময়ে শিশুদের মানসিক অবস্থা নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

স্যানোরা ব্যবহার

আমাদের দেশে ন্যাপকিন প্যাড এর মধ্যে সেনোরা ন্যাপকিন প্যাড সবচেয়ে ভালো। সেনোরা ন্যাপকিন ৩/৪ ঘন্টা বেশি ব্যবহার করা যাবেনা।

জয়া স্যানেটারি ন্যাপকিন কি

এস এম সি এর জয়া স্যানেটারি ন্যাপকিন হচ্ছে মানসম্মত একটি প্যাড যা মেয়েরা মাসিকের সময় ব্যবহার করে থাকে। এস এম সির জয়া প্যাড টি ক্রয় সাধ্য যার ফলে অধিকাংশ মেয়েরাই জয়া প্যাড ব্যাবহার করে থাকে। বেশির বাগ গ্রামের মেয়েরা কাপরের স্যানেটারি ব্যবহার করে। যার ফলে অনেক মেয়েদের জরায়ুর সমস্যা হয়ে থাকে। এবং বিভিন্ন রোগ হওয়ার সম্ভাবনা দোখা দেয়।

কেন জয়া স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করবেন।

  • জয়া স্যানেটারি ন্যাপকিন কিশুরি ও কর্ম জীবি ও অন্যান্য মহিলাদের জন্য অধিক ব্যবহার উপযোগী।
  • এটি বাংলাদের এক মাত্র সুগন্ধি যুক্ত স্যানেটারি প্যাড যা আমাদের দেয় সতেহ অনুভূতি।
  • জয়া বিশেষ ভাবে তৈরি ন্যাপকিন প্যাড যা অনেক আরামদায়ক।
  • অধিক চুষন ক্ষমতা সম্পন।যা জরায়ু থেকে নির্গত রক্ত সম্পূর্ণ ভাবে চুষে নেয়।
  • এর চ্যানেল সাইড থাকাকায় লিকেজ রোদ করে। যা কাপড়ে দাগ লাগা রোদ করে। যা আপনাকে রাখে সতেজ ও শুষ্ক।
  • ইনফেকশন জনিত রোগ প্রতিরোধ করে।

জয়া স্যানেটারি ন্যাপকিন ব্যবহার এর প্রয়োজনীয়তা

আমাদের দেশে বেশিরভাগ সময় কাপড় ব্যবহার করে।যার ফলে জরায়ুতে অনেক সমস্যা হয়।তবে এটা তাদের পথ চলার অন্তরায় হয়ে দারায়। সেই বিশেষ সময়ে তারা শারীরিক ও মানসিক ভাবে অস্বস্তি বোদ করে। বর্তমান প্রেক্ষওটে মেয়েদের প্রতিনিয়ত ঘরের বাইরে ছুটা ছুটি করতে হয়। এ সময় তাদের বাড়তি সুরক্ষা ও স্বস্থি দিতে প্রয়োজন স্যানেটারি ন্যাপকিন। যা ব্যবহারে মাসিকের সময়টা তারা স্বাচ্ছন্দে অতিক্রম করে। নারির শারিরীক, মানসিক ও পারিবারিক সকল ক্ষেত্রে স্যানেটারি ন্যাপকিন অনেক বেশি সময় ভূমিকা পালন করে।

আরো পড়ুনঃ  monocast এর কাজ কি | মনোকাস্ট ১০ খাওয়ার নিয়ম

মাসিকের দিন গুলোতে স্বাচ্ছন্দে চলার জন্য কিছু টিপস

জয়া স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার

মাসিক খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এ সময় সতর্ক না হলে জরায়ুর ক্যান্সার সহ অন্যান্য সমস্যা দেখা দেয়। তাই স্যানেটারি ন্যাপকিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।

  • অনাকাঙ্খিত জামেলা এরাতে ন্যাপকিন গুরুত্বপূর্ণ ।
  • মাসিকের সময় কটন জাতীয় প্যান্টি ব্যবহার করোন এবং নিয়মিত পরিবর্তন করোন।
  • প্রতিদিন গোসল করোন এবং সংবেদনশীল স্থানটি সাবান দিয়ে দূয়ে নিন।
  • ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমন রোধে প্রতিবার প্যাড ব্যবহারের পর সাবান দিয়ে হাত দুতে হবে।
  • বাজারে সুলব মূল্যে অস্বাস্থ্যকর কিছু ন্যাপকিন পাওয়া যায়। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই মানসম্মত ন্যাপকিন ব্যবহার করতে হবে।

আমাদের শেষ কথা

স্যানেটারি ন্যাপকিন প্যাড একটি মান সম্মত উপায় যা মাসিক বা ঋতুস্রাব চলাকালীন সময়ে মেয়েদের সুরক্ষা নিশ্চিত করে। বিভিন্ন রোগ থেকে সুরক্ষা দেয়। তাই প্রত্যেক মেয়ের উচিত মাসিক বা ঋতুস্রাবের সময় কাপড় ব্যবহার না করে মানসম্মত স্যানেটারি ন্যাপকিন প্যাড ব্যবহার করতে হবে।

Back to top button
x
error: Content is protected !!