গরুর মাংস

হালিম বানানোর রেসিপি, হালিম রেসিপি একদম সহজ উপায়ে

আমি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করবো হালিম বানানোর রেসিপি। আপনারা যেন খুব সহজেই হালিম রান্না করতে পারেন। সে জন্য আমি আপনাদের সামনে সহজে হালিম রান্নার রেসিপি টি উপস্থাপন করছি। ইফতারে আমরা অনেক ধরনের খাবার খেয়ে থাকি। তবে তার মধ্যে ভাজাপোড়া খাবার বেশি থাকে। অন্যান্য খাবারের পাশাপাশি ইফতারে হালিম রাখতে পারেন। খুব সহজে যেন আপনারা ইফতারে হালিম তৈরি করতে পারেন তার পদ্ধতি আমি তুলে ধরছি। হালিম তৈরিতে যে সকল উপাদান লাগবে তা আমি বলে জেনে নিন।

হালিম বানানোর রেসিপি উপকরন

  • বিভিন্ন ধরনের ডাল ভাজা যেমন মুগডাল ভাজা, মসুরের ডাল ভাজা, ছুলার ডাল ভাজা, মাসকলায়ের ডাল ভাজা, সব গুলো আমি আধাকাপ করে নিচ্ছি।
  • মাংস ১ কেজি ( যে কোন মাংস )তবে গরুর মাংস হলে বেশি মজাদার হয়।
  • পোলাও এর চাল নিচ্ছি এক কাপ পরিমান।
  • গম নিবো আধা ভাঙ্গা করে এক কাপ।
  • পিয়াজ, রসুন, ও আধা বাটা দুই টেবিল চামচ
  • শুকনো মরিচ গুড়ো, হলুদ গুড়ো, জিরা গুড়ো, ধনিয়া গুড়ো এক চামচ করে। আপনারা চাইলে এখানে ঝাল এর মাত্রা আপনাদের স্বাদ মতো নিতে পারেন। অথবা আপনাদের পরিমান মতো নিতে পারেন।
  • আধা, পুদিনা পাতা, ধনেপাতা কুচি আদা কাপ পরিমান নিয়েছি।
  • কাঁচা মরিচ নিয়েছি ৭/৮ টি
  • টক দই পরিমান মতো নিয়েছি।
  • এলাচ, দারুচিনি, তেজ পাতা দুটি করে নিয়েছি।
  • পরিমান মতো লবন
  • সোয়াবিন তেল পরিমান মতো।

প্রস্তুত প্রনালি

  • প্রথমে একটি পাত্রে ডালগুলো সিদ্ধ করে নিবো। এর পর গম ও চাল সিদ্ধ করে এক সঙ্গে গুটে নিতে হবে।
  • মাংস গুলো কেটে পরিষ্কার করে ধুয়ে নিতে হবে। এর পর ধই সহ সকল মসলা অল্প করে মিশিয়ে নিতে হবে। মশলা মিসিয়ে মাংস গুলোকে কিছুক্ষন রেখে দিতে হবে। যার ফলে মসলা গুলো মাংসে ভালো বাভে মিসে যাবে।
  • এবার একটি প্যানে তেল গরম করে পিঁয়াজ কুচি রসুন কুচি হালকা আচে বেজে নিতে হবে। পিয়াজ গুলোকে বাদামি রং হওয়ার আগ পর্যন্ত ভেজে নিতে হবে। ভাজা হয়ে গেলে এখান থেকে কিছু ভাজা পিঁয়াজ তুলে রাখতে হবে পরবর্তি পর্যায়ে ব্যবহারের জন্য। বাকি পিঁয়াজ গুলোতে মষলা মাখানো মাংস গুলো দিয়ে ভালো করে কসিয়ে নিতে হবে। কষানো হয়ে গেলে মাংসের সাথে আগে থেকে সিদ্ধ করা ডাল ও চাল গুলো দিয়ে রান্না করতে হবে।
  • কিছুক্ষণ রান্না করার পর এগুলোর মধ্যে গমের গুড়ো গুলো দিতে হবে। এবং পরিমান মতো গরম পানি দিয়ে জাল দিতে হবে যতক্ষন না ঘন হয়ে আসবে। ঠান্ডা পানি ব্যবহার করা যাবেনা। কেননা ঠান্ডা পানি দিলে ডালের গুড়ো গুলো এক সঙ্গে জমাট বেদে যাবে।
  • এ পর্যায়ে চুলার আচ বাড়িয়ে দিয়ে ৫/৭ মিনিট রান্না কটতে হবে যেন তারাতারি বলক উঠে ডাল গুলো জমাট না বাদে । যখন রান্নাটি কিছুটা ঘন হয়ে আসবে তখন চুলার আচ মিডিয়ামে রাখতে হবে। ১৫ /২০ মিনিট এই আচে রান্না করতে হবে। এরপর হালিম ঘন হয়ে আসতে থাকবে, তাই চুলার আচ কমিয়ে আরো ১০ মিনিট রান্না করতে হবে।
  • এখন বুঝে নিতে হবে যে হালিমটি রান্না হয়ে গেছে। ঘন হয়ে এলে এতে আগে থেকে ভেজে রাখা পিঁয়াজ বেরেস্তা ও ধনেপাতা কুচি দিয়ে দিতে হবে। এরপর হালিম চুলা থেকে নামিয়ে নিতে হবে।
  • এখন পরিবেশনের করবেন, ইফতারে যেহেতু হালিম পরিবেশন করবেন তাই এতে শসা ও লেবুর রস মিসাতে পারেন৷ কেননা শসা আমাদের শরীরের ক্লান্তি দূর করতে ও হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

আমাদের শেষ কথা

আমার তৈরি হালিম এর রেসিপিটি আশাকরি আপনাদের অনেক সহজ লেগেছে। আপনারা অবশ্যয় বাসায় চেষ্টা করবেন ইফতারে হালিম রান্না করার। আমার রেসিপি টি ভালো লাগলে লাইক করবেন। এবং যে কোন রান্নার সমস্যার সমাধানে আমাদের রেসেপি ঘরে কমেন্ট করে জানাবেন। আশাকরি সুন্দর সমাধান দিতে পারবো। আজ এই পর্যন্তই আবার আপনাদের সামনে নতুন এক রান্নার রেসিপির সমাধান নিয়ে হাজির হবো। ভালো থকবেন সুস্থ থাকবেন। এবং রান্নার যে কোন সমস্যার সমাধানে রেসিপি ঘরের সাথেই থাকবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button